মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C

হরিপুরের রাজ বাড়ী ও আমাই দিঘি

 

হরিপুরের রাজ বাড়ী

 

নিকট অতীতের ও কিছু ইতিহাস ছড়িয়ে আছে হরিপুর উপজেলায়।এর মধ্যে হরিপুর রাজবাড়ীটি আজো কালের স্বাক্ষী হয়ে দাড়িয়ে আছে। এই প্রাসাদোপম অট্টালিকাটি নির্মিত হয় ১৮৯৩খ্রিস্টব্দে। এটি নির্মাণ কাজ শুরু করেন ঘনশ্যাম কুন্ডুর বংশধর রাঘববেন্দ্র রায় চৌধুরী আর সম্পন্ন করেন তারই পুত্র জগেন্দ্র নারায়ণ রায় চৌধুরী। এক শতাব্দীর ও বেশী পুরোনো এই অট্টালিকাটি দৃষ্টি নন্দন কারুকাজের বিলুপ্ত  প্রায় নির্দশনগুলো প্রাচীনত্বের বিবেচনায় খুব মূল্যবান না হলেও এ অঞ্চলের একটি আকর্ষণীয় স্থাপত্য র্কীর্তি হিসেবে এখনো মানুষকে কাছে টেনে নিয়ে যায়। জগেন্দ্র নারায়ণ রায় চৌধুরী বৃটিশ সরকার কর্তৃক রাজর্ষি উপাধিতে ভূষিত  হয়েছিলেন। এ সময়ে বৃটিশ সরকার তাদের স্বার্থ রক্ষার জন্যই সামন্তপ্রভুদের বিভিন্ন উপাধিতে ভূষিত করে খুশি করতে চাইতেন। জগেন্দ্র নারায়ণ রায় চৌধুরীকে এই একই উদ্দেশে রাজর্ষি উপাদিতে ভূষিত করে ছিলেন সত্য। কিন্তু এই উপাধি প্রদানের ক্ষেত্রে সম্ভবত আরো একটি বিষয় কাজ করে ছিলো। আর সেটি হলো তাঁর বিদ্যানুরাগ ও শিল্প সংস্কৃতি চর্চার ব্যাপারে আগ্রহ। রাজর্ষি জগেন্দ্রনারায়ণ যেমন আকর্ষণীয় স্থাপত্য শৈলীর প্রাসাদ নির্মাণ করেছিলেন তেমনি তিনি গড়ে তুলেছিলেন একটি সমৃদ্ধ গ্রন্থগার। শিক্ষা ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রে রাজর্ষির এই অনুরাগ শুধু তাঁর ব্যাক্তিগত সমৃদ্ধির পরিচয় বহন করে তা নয়, সমগ্র হরিপুর বাসীর মানসিক ঐশ্বর্যের উজ্জ্বল দিকটিকেও তুলে ধরে। শিক্ষা ও সংস্কৃতি চর্চার এই ধারায় যে আলোকিত জীবনের আকাঙ্খা সেদিন মানুষের মধ্যে ছড়িয়ে গিয়েছিলো তা আজো অনেকটাই বহমান রয়েছে এই হরিপুরে।

 

 

আমাই দিঘি

 

ঠাকুরগাও অঞ্চলে প্রাচীনকালে বেশ কিছু নদী ও নিচু জলা ভূমি ছিল। আর ছিল ঘন বন জঙ্গল। ফলে পতিত জমির পরিমাণ ছিল অনেক বেশী। তখন মানুষের মূল জীবিকা কৃষি কর্মবণ্ডল। প্রাচীনকাল থেকে যেখানে নদী দূরে ছিল সেখানে জমির উর্বরতা বাড়াতে শুষ্ক মৌসুমে আবাদের জন্য এবং মানুষের দৈনন্দিন জীবনে পানির প্রয়োজন পুরণে প্রচুর দিঘি খনন করা হয়েছিল। রাজা , জমিদার বা তাদের প্রতিনিধিদের সহায়তায় জনহিতকর কাজের অংশ হিসেবে দিঘি খনন হয়। আবার কখনো স্থানীয় বাসিন্দারাও তাদের পানীয় সমস্যা মিটাতে এ ধরণের দিঘি খনন করেছিল। এসবের অনেকগুলো এখন নিশ্চিহৃ হয়ে গেছে। এরই মধ্যে হরিপুর উপজেলার অনেকগুলো দিঘির মধ্যে হরিপুর উপজেলা পরিষদ চত্বরের পূর্ব পাশ্বে অবস্থিত আমাই দিঘি অন্যতম।